সচিত্র মীমিক পত্র

দাস যোগীন্দরনাথ কুণ্ড- সম্পাদিত

কার্ধ্যালয়-_-২৮!১ স্থৃকিয়। দ্রীট কলিকাতা

১৩২৫ সালের বর্ণানুক্রমিক বিষয় সুচী

লেখকগরণের মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী হেন )

বিষয়

৯। ২। খ। €। ৬। | |

৯৬ |

১১

১২ ১৩ ১৪ ১) ১৬। ১৭ ৯৮) ১৯। ২৪

অ-সবর্ণ বিবাহ আত্ম-নিবেদন

একটি ধর্মম-বন্ধুর কথ' কবির প্রেম ( গল্প) করুণ ( কবিতা ) ... কীর্থন

কীত্তির ডাকাতি (গর কুশদছর ইতিহাস ...

কুশদহ-সহিতি কুশদহ-পজী

কুশদহর রক্ষার্থে অবতীর্ণ বাণী কে বড় জাতীয় সঙ্গীত তিনশ পৈধ দিনে দালের প্রার্থন' নববর্ষ-বন্গন। নৃতন গান পল্ভী-সমস্ক। পাটকেবাড়ী - প্রাপ্তি স্বীকার

লেখক ব৷ লেখিক৷ পৃষ্ঠা

প্রফেসার যুরলীধর বন্দে]াপাধ্যায় এম.এ, ২৫* সম্পাদক রর ১৩৩ সম্পাদক রঃ ৮১ শ্রীযুক্ত বিজয়বিহারী চট্রোপাধ্যার বি-'এল, 8৫ শ্রীযুক্ত হাজারীলাল বন্দ্যোপাধ্যায় ১৪৬

উদ্ধত চর ৬৫ শ্রীতী সরসীবাল! বনু ১৯৪ শ্রীযুক্ত চারুচজ্জী মুখোপাধ্যায় বি-এ ১৭, ৬৬১

৯৮) ১৩০)

২৮) &৮১ ১২২১ ১৫৬, ১৭৯, ২৯৮

২৪১, ২৬৫; ২৯০

সংগৃহীত ২৯। ৬২, ৯৪, ১২৭, ১৫৮) ১৮১১ ২১১) ২৪৬১ ২৭৭)

সম্পাদক ২৯৪ উদ্বত ২৬ কাঙাল ফিকিরচাদ ফকির ... ১৮৫ সম্পাঙ্ছক -** হানি হি ২৪৯ শীমতী সরমীবাল। বনু নর শ্রীযুক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ০" ২১৭ শ্রীযুক্ত রবীন্রানাথ ঠাকুর রঃ

সম্পার্দ ১১১ সম্পাদক য় ১৫২

২১। প্রায়শ্চিন্ত ( উপন্তাস ) শ্রীমতী সরসীবাল! বনু ৮১৩৫) ৭১১ ১০২ ১৩৮ ১৬৩) ২১৮ ২৫৫, ২৮৩) ২২। বর্যানিশিথে ( কবিতা) প্রীতিবালা সরকার ১১ ২০৮০ ২৩, বিধায়. "৮ সম্পাদক ২৮২ ২৪। বিবিধ সংগ্রহ মন্তব্য ২২ ৫২, ৮৫) ১১৭ | ্‌ | ১৪৭) ১৭৬, ২০৭) ২৩৫) ২৫। ভ্রমণের সার্থকত! ... শ্রীবুক্ত নগেত্রনাথ বস্থু ... ১৮৯ ২৬। মা আননাময়ীর ছেলে সম্পাঙ্ক ১৩৩ ২৭। মুন! নদী সংস্কার ভাক্তার সুরেখচজ্ যি ... ২৩৮ ২৮। রামমোহন স্বতি ... সম্পাদক নি ১৬২ ২৯। ব্রামমোহন স্তি | (কবিতা) যুক্ত হাজারীলাল বন্দেযাপাধ্যায় ১৬৫ ৩। শোক-সত। ... ডাক্তার নগেক্জানাধ বুখোপাধ্যায় ৯১ ৩১। সঙ্গীত .** সম্পাদক উদ্ত ৯৭) ১৬১, ২৮১১, ৩২। সত্যগ্রহ -** সম্পাদক বর ২৮৮ ৩৩। সত্যেরপূজা হর্ন রঃ ১৮৬ ৩৪। সিদ্ধ পুরুষ রাজ! রামমোহন শ্রীযুক্ত যোগীন্ত্রনাথ বন্থু কবিভূষণ ২১৮ ৩৫। স্থানীয় বিষয় সংবাদ রঃ ২৬, ৬১১ ৮৮) ৯২৬, ১৫১১, ১৭৬, ২১৫) ২৪৪, ২৭৫. ২৯৩) ৩৬ |

্র্গীয় প্রকাশচন্দ্র চৌধুরী উদ্ব,ত নি ১৩৩

“জননী জন্মভূমিশ্চ স্বর্গাদপি গরীয়

"সতাম্‌ শিবম্‌ স্ন্দরম্”

জ্ঞানবিস্তার সতাবসঞ্চার চরিত্রগঠন

শত তির -পাঁটি, শী পাটিশিত পতিত শী

তল পি পিল তত তত পিল »০ সপ নিলি শি পস্টি তি ৩৯ তি পি

দশম বর্ষ বৈশাখ, ১৩২৫ প্রথম সংখ্যা

তিনশ' পৈষটি দিনে

পয়লা বৈশাখের দিনে একটি মেয়ে বলেন, “টৈ নববর্ষ বলেতো৷ কিছু মনে ছিল না, উপাসনায় গিয়ে নববর্ষের একট! ভাব মনে এলো,” কথাট! খুব সত্য, “বর্ষশেষ” বা "'নববর্ধ” উৎসবের মধ্যে একটা অন্বভূতি-_-নৃতনের আগমন-বার্ডী প্রাণে ঘোষিত হয় বটে কিন্তু গ্ররুত নববর্ষ তাহার নিকটে নবীন _দীবনপ্রদ, বিনি তিনশ'পৈষটি দিন, . দিনের শেষে গুনেন “আমি গেলাম” এবং প্রভাতের আগমনে শুনেন, “আমি এলাম,” আর সঙ্গে বিশ্বাসীর বলে, “হে প্রভু! অগ্কার দ্িন আমার পক্ষে তোমার আশীর্বাদ দ্বার! মণ্ডিত কর. তোমার শক্তিতেই যেন আমার সমস্ত দিনের কাধ্যনির্বাহ হয়, আমার আমিত্ব অভিমান, অহঙ্কার প্রকাশিত হইয়! যেন তোমার কার্ধোর এবং তোমার সন্তানসম্ততিগণের বিদ্ব না জন্মায়। অগ্যকার অন্জল তুমিই দান কর, তাহ! পান তোজন করিয়া! যে শক্তি হইবে তাহা যেন তোমারই কার্ধো অর্পণ করিতে পারি, জগতের কলাাণ কর, আমার দেশের-_জন্মভূমির কণ্যাণ কর।” এই তিনশ' পৈষটি দিনের প্রার্থনাই একটি নবীন উদ্বোধন, নববর্ষ নববর্ষ সেই ত্নিশ'পৈষটি দিনেরই আর্ত বিশ্বাসীভক্তের জীবন নিতা উৎসবমর ; নববর্ষ, বিশ্বাপী-তক্তের জীবনে প্রকৃত নবতাব দান করে। কিন্ত যেখানে জীবনই জাগে নাই, সেখানে “কি ব৷ রাত্র কিবা দিন,” ভগবান করুন, কুশদহবাসীর প্রাণে নব জাগরণ আস্মথক। দাসের প্রার্থন! সার্থক হউক, দেখিয়। শুনিয়। কতার্থ হই।

সপ শা

কুশদহ, বৈশাখ, ১৩২৫

০০০০০ ০১০

_ নববর্ষ-বন্দনা *

নববর্ষ উপস্থিত বালক বালিকাগণের প্রবেশ টম বালক --তুমি কে ভাই, এখানে দীড়িয়ে রয়েছ ? ২য় বালক--ঠিক যেন একটি জীবস্ত গাছ, দেখতে. কি সুন্দর লাগছে। ৩য় বালক-_তুমি কে ভাই ? নববর্ধ-__জামি নববর্ষ ৩য়-বালক-_তুমিই নববর্ষ? আজ আমর! নববর্পকেই খু'জতে এসেছি। ১ম বালিকা__তোমার গায়ে এত পাতা আর ফুল কেন ? তো আমরাও পরেছি। তোমার রাজবেশ নেই? নববর্ষ-_-এই তো! আমার রাজবেশ আমার যিনি প্রভু, তিনি আমাদের এই বেশেতেই সাঙ্গতে ভালবাসেন। চারিদিকে চেয়ে দেখ দেখি, কত বিচিত্র সবুজের শোভায় পুথিপী কি স্বন্দর শোভা ধারণ কোরেছে, বসন্ত এসে দিকে দিকে আমার আগমন বার্তী ঘোষণা কোরে দিয়েছে, তাতেই তোমরা জানতে পেবরেছ যে আমি আসছি,_নয় কি? ২য় বালিকা__-তা ঠিক। আমরা তে! তাতেই ঘর ছেড়ে, সবুজ পাতা আর নানাবন-ফুল নিয়ে থেলবার জন্ত বাইরে বেরিয়েছি ১ম বালক-_ হ্যা ভাই নববর্ষ, তোমার প্রত আমাদের জন্য কিছু উপহার দিয়েছেন কি ? নববর্ষ__দ্িয়েছেন বৈ কি? তিনি বোলেছেন, পৃথিবীকে মামি বড় ভালবাসি, সেখানকার সকলের জন্ঃ নান! উপহার তুমি নিয়ে যাও। কিন্তু ধোলো, আমার সব দান তাদের পসন্দ না হোলেও, কোনটাও অপ্রয়োজনীয় নয়) তাদের নেবার গুণেই সব সুন্দর হোয়ে উঠ বে। | : হয় বালক--ভাই নববর্ষ, তিনি যা পাঠিয়েছেন আমরা তাই নিয়ে খুসী হবো, তীর দান হাসিমুখে নিয়ে আমরা ধন্য হবো এসে ভাই, তুমি আজ আমাদের: তিথি, তোমায় আমর আদর কোরে আমাদের খেলার সাথী কোরে দিই রা

. * রামপুরছাট বাল্যসমিতিতে অভিনীত।

৮০

১*ম বর্ষ সংখ্যা] : -. - পল্লী-সমগ্ত।

০৯৩ পাস তাস তি পিসি রস্টি শ্পাস্মসপসিস্জপসটিসসসাসিপস পপি পি শপ পি পা পিসি পাস শা লা ০৯৫০৯ ০৯ ১.

. ১ম বালক-_এসো তাই: নববর্ষ, এই মাল! তোমা গলায় পরিয়ে দিই, এই তোমার যোগ্য উপহার এস নি আমর! সকলে মিলে নববর্ষকে ঘিরে গান করি। |

আজি নববরবের নবীন প্রভাতে নব বন্দনা! গানে,

চারিদিক মোরা ' করিব মুখর, সুমধুর নব তানে |

এস হে নবীন, তরুণ, অরুণ, কিরপোজ্জল প্রাতে,

শ্তাম পল্গবে রচিত মুকুট বাঁধিয়া ষতনে যাথে।

শুভ্র মালতী মন্লিক। ফুলে তনু সাজাইয়। যতনে

এস সুন্দর মানস-হরণ, আমাদের এই ধরণী,

তোমার অমুত পরশে, নিমিষে হোক্‌ সুন্দর বরণী,

তোমার তরুণ পরশ লাগুক দিকে দিকে জড় চেতনে।

তব বন্দন! পাখীর কণ্ঠে যে ধ্বনিছে কাননে

কোথ। সে নবীন চিরন্ুন্দর যাহার আদেশ বহিয়া,

এসেছ হে দূত, উর্ধ হইতে মোদের ধরায় নামিয়া।

নত শিরে মোরা নমি তার পায় পুজি সে চিরন্তনে ;-

বরষের যত সব স্ুুখ ছুঃখ ধন্ত হোক পরাণে।

| শ্রসরসীবাল বসু

পল্লী-সমস্তা| স্ঠারু রবীন্দ্রনাথ পাবন! প্রাদেশিক সন্মিলনীর অতিভাবণে যে পল্লী-ম লী প্রতিষ্ঠার কথ! উল্লেখ করিয়াছেন, তাহার সম্বন্ধে আলোচন। কর! এই প্রবন্ধের উদ্দেন্ট তিনি বলিয়াছেন, সমবেত চেষ্টা ভিন্ন আজকাল কোনও বিষয়েরই উন্নতি সম্ভবপর নহে সমবেত চেষ্টার ইচ্ছ! পললীবাসীর নাই এবং খর্ভযানে তাহাদের সে ক্ষমতাও নাই। তবে এখন উপার কি? উপায় কিনাই? অবশ্ত পল্লীবাসীর! নিজের! কি কর্রিবে/কিরূপে করিবে _তাহাও কিছুই ভাবিয়া পায় না। অথচ কোনও আদর্শও সম্মুখে নাই, যাহার ভৃষ্টান্তে তাহা তাহাদের ' কার্যাগুলি নিয়ন করিতে পারে অবস্থায় দেশনারকদিগের দ্বার! একটি | আদর্শ'মগডলী স্থাপিত হওয়! আবশ্তক। . ই” শু |

ইশদহ তি (বৈশাখ ১৩২৫

ছি ভত্এন্চ তি ওলি এস শি. তে * তা শীত ধক রি একি খল জা তা তক তত তত নিন রক্ত হি

কোনও একটি গ্রাম পরীক্ষার জন্ত নির্দিষ্ট ফা উচিত। সেখানে একটি 10108-9:00%.. 00772) প্রতিষ্ঠা করা কর্তব্য। একটি মধ্যম রকম গ্রাম লইয়া কার্ধয আরম্ত করিলেই ভাল হয়। আর সেই গ্রামে ছুই একটি এরূপ শিক্ষিত সৎসাহসী লোক. থাক! চাই, বাহাদের দ্বারা এই কোম্পানীর কার্ধ্য স্থচারূরূপে নির্বাহ হইতে পারে। এন্ুপ কোম্পানীর মূলধন ২*,০**২ টাক! ধার্ধ্য করিয়া, &*০* অংশে বিভক্ত কর] উচিত। প্রত্যেক অংশের মূল্য ৪২ চারি টাক।। ইহার মধ্যে বর্তমানে ২৫০০ অংশে বিক্রয় করিয়া কোম্পানীর কার্ধ্য আরম্ত করা. কর্তব্য। প্রথম 'প্রথম গ্রামবাসীর! অংশ গ্রহণ করিবেন না। কারণ, ইহার উপকারিত। তাহার] নিজেরা উপলব্ধি "রিতে পারিবেন না এবং গাছে কোম্পানী নষ্ট 'হয় বলিয়। তাহাদের মনে কিছু আশঙ্কাও যে না. থাকিবে, তাহা নহে : সেইজন্, প্রথমেই কোম্পানীর সমস্ত অংশ এক সঙ্গে না খুলিয়া অর্ধেক পরিমাণ অংশ বিক্রয় 'করিয়া কার্ধ্য আবস্ত করা৷ উচিত। কারণ, কোম্পানীর উন্নতি দেখিলে গ্রামবাসীরা অংশ লইবে। দেশনায়কেরা ইচ্ছা করিলে এক জনে বা.ছুই জনেই সমস্ত অংশ ক্রয় করিতে পারেন বটে ; কিন্তু তাহাতে উদ্দেশ্য সফল হইবে না। স্থানীয় লোকের মধ্যে বা নিকটস্থ সহরবাসীদের দিকট অগিকাধশ অংশ বিক্রু় করার চেষ্টা করিতে হইবে। ১4 -

১০১০০*২ টাকা লইয়া! প্রথম কার্ধ্য আরম্ভ করিতে হইবে। প্রথমেই গ্রামের পুরাতন পুক্করিণীর সংস্কার করা উচিত। উক্ত কোম্পানী গ্রাম- বাসীদের নিকট হইতে পুক্ষরিণীর মৎস্য ধরার স্বত্ব লইয়া পুঙ্ষাণী সংস্কার করিবেন ; এবং উক্ত পুষ্করিণীতে মৎস্তের চাব করিবেন। ইহাতে মূলধনের অবনতি হইবে না) বরং কোম্পানী ইহা দ্বার লাভবান হইবেন। যখন গ্রাবাসীর। দেখিতে পাইবে যে, এই কোম্পানী লাভবান হইতেছে, তখন তাহারা কোম্পানীতে অংশ গ্রহণ করিবে। ইহ। দ্বার! গ্রামের, মত্ম্যকষ্ট নিবারণ হইবে, পানীর- জলের স্থবিধ৷ হইবে এবং পুষ্কারণীর মাটি দ্বারা পল্লীবাসীদের বাড়ীর নিকটের অনেক ডোবা পূণ হইবে। এখন কথা হইতেছে যে, হয় তো৷ অনেকে তাহাদের বাড়ীর সংলগ্ন পুষ্কারণীর স্বত্ব ছাড়িতে না চাহিতে পারেন। . অথচ হয় তে! তাহাদের উক্ত পুষ্করিণীর সংস্কারের 'জ্মমতাও নাই। এরূপ ক্ষেত্রে উক্ত-কোম্পানী পুক্ষরিণর্ণ সংস্কার করিয়। দিয় স্বত্বাধিকারীর সহিত একপ চুক্তি রাখিতে পারেন যে, যদি তিনি নির্দিষ্ট

১০ম বর,» সংখ্যা] (প্ী-সমা .

শি শিপ চি চে সস িতাশিতা সি শাসিপাস্সপিপিসিত ৭৩

সময়ের মধো ক্রমে ক্রমে নির্ধারিত সদর সহ টাকা পরিশোধ করিতে পারেন, তাহা হইলে গুঙ্করিণীর স্বত্ব কোম্পানী তাঁহাকে ছাড়িয়া দিবেন। যত দিন তিনি টাকা পরিশোধ করিতে ন। পারিবেন, তত দিন: পুষ্করিণীর মত্স্ত ধরার স্বত্ব কোম্পানীর হাতে থাকিবে লাভের দিক্‌ ন! দেখিলে কোনও লোকই কোনও কার্ষ্োে যোগ দিবে না। এই কার্য দ্বার! প্রথম প্রথম সমবেত চেষ্টার আস্ত হইবে। সমবেত চেষ্টার ফলে সমবেত চেষ্টার গুণ উপলব্ধি হইবে।

কোম্পানীর দ্বিতীয় কার্য হইবে-এঁ গ্রামের খণ-তার গ্রস্ত ছুই চারি জন লোককে অল্প সুদে টাকা কর্জ দিয় তাহাদের খণ পরিশোধ করিয়৷ দেওয়া, এবং তাহাদের কৃষি-উৎপর্ন ভ্রব্যা্রি স্তাধ্য মূল্যে খরিদ করিয়া লইয়৷ তাহা- দিগকে মহাজনের হাত হইতে উদ্ধার করা সকলেই অবগত আছেন যে, রুষকেরা যখন তাহাদের কুষি-উৎপন্ন দ্রব্যাদি মহাজনের-নকট বিক্রয় করে, তখন মহা'জনের! তাহাদের প্রাপ্য হইতে “ঈশ্বর-বৃত্তি' খলিয়া কিছু কছু করিয়। কাটিয়া লন। বাংলা দেশের মহাঁজনদিগের গার্দতে যথেষ্ট টাকা ঈশ্বর-বৃত্তি খাতে মজুত হইয়া থাকে ইহ দ্বারা কোনও কোনও স্থানে বারোয়ারী প্রভৃতি হয়। কিন্তু তাহাতেও সম্পূর্ণ টাক! ব্যয় হর না। এখন অনেক স্থল হইতে সে বারোয়ারীও উঠিয়। গিয়াছে মহাজনের এখন যাহা দান করেন, প্রায়ই তাহা ঈশ্বর বৃত্তির তহবিল হইতে কোম্পানীও যখন কুষক- দ্িগের নিকট হইতে দ্রব্যাদি খরিদ করিবেন, তখন ঈশ্বর-বৃত্তি কাটিয়া লইবেন কিন্তু উক্ত ঈশ্বর-বুত্তি তাঁহার! উক্ত বাক্তির নামে আমানত জম! রাখিবেন ; তাহার উপর সুর্ধ চলিবে এইরূপ করিলে প্রত্যেক ৎসরেই রুষকদিগের কিছু কিছু জমা হইবে কোম্পানী যে সম দ্রব্যাদি খরিদ করিবেন, তাহা যদ্দি তাহার উচ্চ মুলেয দিক্রয় করিতে পারেগ তবে তাহা হইতে যেলাত হইবে, তাহার বাল আনা অংশের এক অংশ কৃষকের নামে উক্ত কোম্পানীতে আমানত জমা করিয়৷ রিলে আরও ভাগ হয়। ছুই চারি জনের অবস্থার উন্নতি দেখিলে, অন্ত কৃষকেরাও তাহাদের ছার কোম্পানীর হত্তে স্ত্ত করিবে।

তৃতীয়তঃ, কোম্পানী উক্ত গ্রামে লবগ, কাপড়, মশল!, কেরোসিন, স্ব, চাউল প্রভৃতি নিতা-ব্যবহার্ধ্য দ্রব্যাদি কি পরিমাণে লাগে, তাহ! অবগত . হইয়া! যদি সেই পরিমাণ জিনিস আনাইয়। রাখেন এবং অল্প লাতে উহ!

/ কুশদ্হ | [বৈশাখ, ১৩২৫

নটি সহি সাও সি এরি পি সপ

রি পি সস সপ এস পিস রিট

শ্রামবাসীদের.নিকট বিক্রয় করেন, তাহা হইলে কোস্পানীয়ও লাভ হইবে, গ্রামবাসীদেরও সুবিধা! হইবে। ইহার পর কোম্পানীর কার্ধ্যের উপর লোকের শ্রদ্ধা হইলে .গ্রামের সর্ববিধ আবপ্তক দ্রব্যই কোম্পানী ভাণ্ডারে রাখিতে পারিবেন। ইহ! দ্বারা কোম্পানী লাভবান হুইবেম এবং গ্রামবাসীরাও লাতবান হইবে এইরূপ করিলে ক্রমে সমবেত চেষ্টার প্রবৃত্তি গ্রামবাসীদের মধ্যে আসিবে যখন গ্রামবাসীর! দেখিৰে ষে, কোম্পানীর অংশ লইলে লাভবান হওয়া যায় তখন সকলেই কোম্পানীর অংশ গ্রহণ করিবে। কোম্পানীর উপর লে]কের বিশ্বাস হইলে গ্রামের অনাথ! বিধব প্রভৃতির যাহার্দের যাহা! কিছু মজুত আছে, তাহারা উক্ত কোম্পানীতে আমানত রাখিবে। তখন কোম্পানীর কোনও বৃহৎ কার্ষ্যের জন্যও অর্থের অভাব হইবে নাঃ পরস্ত উক্ত গ্রামের কেবল একমাত্র কোম্পানীই মহাজন থাকিবে। তারপর কার্ধ্য হইবে কোম্পানীর একটি তালিকা প্রস্তত করা। গ্রামে কাঁধ্যক্ষম অথবা নিষ্কণ্মা স্বক্পকণ্ম। লোকের সংখ্যা নির্দেশ কর। এবং তাহার কে কি কার্ষোর উপযোগী, তাহা নির্ধারিত কর প্রত্যেক লোককেই তাহার অবস্থা এবং ক্ষমত1 অনুযায়ী কার্ষো লিপ্ত রাখিতে হইবে, এবং তাহ! হুইতে তাহার! প্রত্যেকেই যাহাতে কিছু ফিছু উপার্জন করিতে পারে, তাহার ব্যবস্থা করিতে হইবে লোকর্দিগকে ঘে সমস্ত কার্ষ্যের উপযোগী বলিয়া বিবেচন। কর! হইবে, তাহাদিগকে সেই সমস্ত কাধ্য শিক্ষা দিবার জন্য লোক আনাইয়। কোম্পানী তাহাদিগকে শিক্ষা! দ্িবেন। যখন লোকে দেখিবে যে, বাড়ীতে বসিয়াই উপার্জন কর! যায়, তখন অনেকেই সেই কার্যে যোগদান করিবে।

গ্রামের মল-মূত্রাদ পরিষ্কারের ব্যবস্থা! করা অতি সহজে হইতে পারিবে তখন গ্রামের জঙ্গল পরিষ্কার সন্বন্ধেও আর বিশেষ বাধা থাকিবে না। প্রত্যেক গ্রামবাসীর. নিকট হইতে অবস্থ।-বিশেষে উর্ধে মাসিক %০ এবং নিয়ে মাসিক ২১৫ হিসাবে আদায় করিলে গ্রামে মেখর রাখা যাইতে পারে এবং মল-মুত্র আবর্জনাদি ছার! গ্রামের নিকৃষ্ট জমি-সমূহের উৎকর্ষ সাধিত হইতে পারিবে।

এইব্ূপে গ্রামের লোকদ্িগকে কর্মী করিয়া তুলিতে পারিলে সমবেত চেষ্টায় কৃষি, বাণিজ্য, শিল্প প্রভৃতির উন্নতি আপন! হইতেই হইবে। তখন গ্রামের জঙ্গল পরিফার; পাঠশালা -স্থাপন, ধর্মগোল। প্রতিষ্ঠা! বিবাদ-

১০ষ বর্ষ, ১ম সংখ্যা] পল্লী-সফন্তা

মীমাংসা প্রভৃতি কার্য্য তাহারা নিজেরই ব্যবস্থা করিয়া লইবে। লোকের একতা বৃদ্ধি পাইবে এক সঙ্গে স্বার্থ-সম্পর্কে সর্বদা মিলামিশা করায় পরস্পরের মধ্যে প্রীতি বর্ধিত হইবে। গ্রামের অবস্থার পরিবর্তন হইলে, গ্রাবাসীরাই গ্রামে নির্দোষ উৎসবাদির অনুষ্ঠান করিবে কিন্ত এইরূপ আদর্শ প্রথম দেশনায়কদিগের দ্বারা প্রতিঠিত হওয়] প্রয়োজন তাহা না হইলে গ্রামবাসীরা প্রথম্দে কোনও কার্য্যেই হস্তক্ষেপ করিবে না। সরকার বাহার ০০-০09180৮9 01601 9০০191% প্রতিষ্ঠ। করিয়। গ্রামের উন্নৃতি- কলে চেষ্টা করিতেছেন। * দেশনায়কগণও যদি এইক্ল্‌প ধরণের কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করেন, তাহ] হইলে অচিরাৎ গ্রামের অবস্থার উন্নতি হইবে। সম্প্রতি লাটপাহেব বাহাছুর ম্যালেরিয়' নিবারণ সম্পর্কে যেক্ধূপ মন্তব্য প্রকাশ করিয়াছেন, তাহাতে গ্রামের পূর্বাবস্থা আবার ফিরিয়া! আসিবে বলিয়া সকলের মনে আশার সঞ্চার হইতেছে (সাহিত্য সংবাদ হইতে গৃহীত ) * সরকার বাহাছরের চেষ্টার সহিত দেশবাসীর সমবেত চেষ্টা মিলিত হইলে সুফল লাভের আশা করা ষায়। আজকাল পল্রীগ্রাম একরূপ বাসের অন্পযুক্ত হইয়৷ পড়িয়াছে। জলকষ্ট, ম্যালেরিয়া প্রভৃতি লাগিয়াই আছে। বিভশালী ভিন্ন, মধ্যবিৎ দরিপ্র গৃহস্থ, অর্থাভাব-নিবন্ধন নগর সহরাদিতে বা স্বাস্থ্যকর স্থানে গমন করিবার স্থৃবিধা পান না। সুতরাং পল্লীগ্রামের অশেষ কষ্ট-যস্ত্রণা তশঠাদিগকে নীরবে সহ্য করিতে হয়। পল্লীগ্রামের অবস্থার উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে গ্রামবাসীদের অবস্থার উন্নতি হওয়ার সম্ভাবনা বঙ্গের অধিকাংশ পল্লীতে নিয়শ্রেণীর লোক সংখ্যাই অধিক। পলীবাসী কৃষকগণ সবল সুস্থ না হইলে অনেক সময় শত্যাদি উৎপন্নেরও ব্যাঘাত জন্যে | স্থৃতরাং উদ্যোগী ব্যক্তিগণ বিনয়ে যত্রবান হইলে সফল লান্েব সম্ভাবনা বক্তার কোনও কোনও মন্তব্যের সহিত ব্যক্তিবিশেষের মতানৈক্য হইতে পারে, তথাপি বিষয়টা উপেক্ষণীয় নহে। ২৪ পরগণ। স্বখচর পল্লীতে স্ুপ্রসিষ্ধ রায় বাহাছুর ডাক্তার শ্রীযুক্ত গোপালচন্ত্র চট্রোপাধায় এম-বি নহাপয় এইরূপ একটি পল্লীসমিতি প্রতিষ্তিত করিয়াছেন। তশহার নিকট শুনিয়াছি সুখচরে প্রথমে খুব ম্যালেরিয়া জলকষ্ট .ছিল। কিন্তু তাহার চেষ্টায় পরিশ্রমে স্ুখচরে ম্যালেরিয়ার প্রকোপ অনেক পরিমাণে 'ক্থাস হইয়াছে, জলকষ্টও জনেক কমিয়৷ গিয়াছে। আমরা প্রতি পল্লীর উদ্ভোগী যক্কিগণকে রায় বাহাছুরের দৃষ্টান্ত অনুসরণ করিতে বলি। প্রথমে সম্পূর্ণ না হউক, কতকটা ফললাভ হওয়াও সম্ভব বঙ্গদেশের স্বাস্থা-বিভাগের কমিশনার সহৃদয় ডাক্তার বেন্টলি বঙ্গের পল্ীসমূহের স্যাস্থ্যোন্নতির জন্য বিশেষ চেষ্টা করিতেছেন | তিনি বলের বিভিন্ন পল্লীতে ঘুরিয়া ফিরিয়া স্বাস্থাদির তথা সংগ্রহ্থকরিয়া থাকেন। তাহার সহাদয়তার জন্য বঙ্গবাসী ভাহার নিকট বিশেষ কৃতজ্ঞ। পন্বীবাপী উদ্যোশিগণ ইচ্ছা করিলে, তীহারও সহায়ত! লাভ করিতে পারেন। .. (সাঃ সং সম্পাদক)

৮. | কুখদহ 1 বৈশাখ, ১৬২৫

স্ব স্িস্িস্ম্িটি 5755 শ্রইঠা ৯৫৭১০ ৬-ট৬।

প্রারশ্চিন্ত

€( উপন্যাস )

প্রথম

স্বদেশীক্প হাক্গামায় ভুইবৎসর কারাবাসের পর, যে দিন ল্লতিকাস্ত জেল ' হইতে মুক্তি পাইর়! আসিল, সেদিন পিত৷ ভ্রাতা বন্ধু বান্ধব আত্মীয় স্বঞ্জন, সব চাইতে আনন্দ হইয়াছিল বুঝি হ্রদাদার যে হরপাদাকে সম্পদে, বিপদে, প্রাতে বা রাতে। ঘরে 'বাছিরে, কেহ কখনও হুক! ছাড়! হইতে দেখে নাই' সেই হরদাদা আর সকলের সঙ্গে ষ্টেশনে : রাতিকান্তকে আনিতে 'ষাইবার সময় ছক লইয়া যান নাই। গোলেমালে তাহার সে অশোভন মুর্তি কাহারও চোখে পড়ে নাই, কিন্তু রতিকাস্তকে ট্রেখ হইতে নায়াইয়া আলিঙ্গন, প্রণাম, আশীর্বাদের যথোচিত পালা শেষ হইলে পর, ছেলের দল হবদাদার €স বাম হস্তখানির বিসম্বশ রিক্ততায় আগেই নজর বিল আুরেশ কহিল “এ কি দাদ! মহাদেবের ভন্বুর কি হারিয়ে গেল? আজ “কি সীদেব পূর্বদিক ভূল' করেছেন ? এতো তাল লক্ষণ ন। £” হুরদ্াদারও এতক্ষণে হুস্‌ হইল, তিনি কহিলেন "ন। হে না, এ-টা ভাল লক্ষণই বোলতে হবে, রতিকাস্তকে নিতে এসে .ছ'কা ভুলে এসেছি, তা ভালই ধোয়েছে, হাত আমার খালি যাচ্ছে না”। সমস্ত পথ হরদাদ। রৃতিকান্তকে হাতে ঘেরিয়। অ'কড়িপ়া,লইয়া পথ চলিতে লাগিলেন, বাড়ীতে জ্ু্টসিবামাত্র » মেক়ের- আনন্দে শঙ্খধবনি করিয়: উঠিল, হরদাদা সাশ্রনয়না চিস্তামণিকে কতিলেন। « | “এই নাও বৌ মা, তোষার হারানিধি ফিরিয়ে আনলুম। বলেছিলুষ তো, কেঁদোম 'মা, বুতিকান্ত ফিরে আসবেই জোয়ান বয়েস, রক্ত গরম, | তার উপর ঘাড়ে এখনও বোঝা পড়ে নি, ওদের অমন ছু একট] ভুল ' চুক হোয়েই থাকে; আবার তাও বলি, কোম্পানী বাহাদূরকে একটু তলিয়ে বুঝতে, হয়। "হস্ত [কীচুর্ণ তাদেরও একটু খাওয়া -দরকার, মাধাও ঠাণ্ডা হবে, ভাল কোক বোঝবারও . শক্তি বাড়নে। রতিকান্তর পজন্তেও ' ব্যবস্থা-নয় তো রতে গোটাকতক হত্ত কী তিজিযে রেখো, সকালে উঠে একটু কোরে থেতে দিও,ছুদিনে সব ঠিক হোলে বাবে

১ম বর্ষ, : ১ম সংখ্যা) . প্রায়শ্চিত্ত

ইসস ৯৬ টিসি এসসি প্র

হরদাদ। নিজের একমাত্র শ্রেষ্ঠ সম্বল হরিতকীচুর্ণ রতিকান্ের জন্ত ব্যবস্থ। করিয়াই সরিয়া পড়িলেন। দীর্ঘ দুই বৎসর পরে, পুত্র বিচ্ছেদ্ধাকুল। জননী পুত্রকে বুকের মধ্যে টানিয়! লইলেন। কারাবাদক্রিষ্ট সন্তানের বিশুষ্ক ললাট চুম্বন করিধা মাথার ঘন্চুল- গুলির মধ্যে অন্গুলী চালনা করিতে করিতে জননীর ছুই বিন্দু আনন্দাশ্রু নিঃশবে পুত্রের :মস্তকে পড়িল। বাড়ীর আশে পাশে মেয়েরা ঠাড়াইয়া, অশ্রুসজল চক্ষে মিলন-দৃ্ঠ দেখিতে লাগিলেন। হ্রদাদা সে সকল আর দেখিবার জন্ত বিপন্ব করিতে পারিলেন না বাহিরে নিজের ছোট ঘরটিতে আসিয়া, টিক। ধরাইয়! কলিকাম় তামাকু চড়াইয়া, অভিমানিনী হুকা স্থন্দরীর সাধ্য সাধনায় মনোনিবেশ করিলেন দ্বিতীয় বরতিকান্ত আহারান্তে বিছানায় শুইয় ছ্রট্স্ম্যান পড়িতেছিল। বিচক্ষণ সম্পাদকের বিচিত্র মন্তব্যগুলি যুবকের মনে যে ভাবের উদ্রেক করিতেছিল উহ! পরাধীন জাতির মনের মধ্যে যে কিছুতেই হওয়া উচিত নম, তাহ! মে বুঝিতে পারিতেছিল ন1।. হরদাদার নির্বন্ধা।তশযো এবং প্রত্যহ তাহার জিজ্ঞাসার উত্তরে মিথা! কথ৷ বঙ্গি্া পাপ সঞ্চয়ের ভয়ে চিন্তামণি পুত্রকে প্রতিদ্দিন প্রাতে হরিতকী ভিজান জল পান করিতে দিতেন। বৃতিকান্ত হাসিয়া ভরদাদার সে মহোৌবষধি- টুকু পান করিত। হরদাদার প্রির বিশ্বাস ছিল মহোঁষধির গুণ ধরিবেই। চিন্তামণি আহারারদি সারয়া, পুপ্রের কাছে আপিয়া সুপারী কাটিতে বসিলেন। তিনটি ছেলের মধো রতিকান্তই নষ্ঠ, ছ'টি পুত্রবধূ ঘর সংসার দেখিতেছে,এখন রতিকান্তের বিবাহ দিয়। ঘব্রে বধূ আনিতে পারিলেই তিন নিশ্চিন্ত হন। বধুদ্ধের এখনও সন্তানাদি হয় নাই, বড়. মেয়ের তিনটি ছোট ছোট ছেলে মেয়ে বাড়ীর সে অভাব পুরণ করিয়া রাখিয়াছে-চিন্তামণির ছইটি মাত্র কন্তা' অনৃষ্টদোষে বড় মেয়েটি অপোগগুগুলি রাখিয়।৷ অকালে দেহত্যাগ করিয়াছেন।ছোটটিও অল্পবর়সে এক টিমাত্র পুত্র লইয়৷ বিধবা হুইয়াছে। ম। কাছে আপিক্া বসিবামাক্র রতিকান্ত কাগজ রাখিয়! উঠিয়! বসিল, ডাল! হইতে কুচা সুপারী তুলিয়া মূখে দিয়। কহিল, এর মধ্যেই খাওয়। হয়ে গেল মা? পেট ভরে খেয়েছ তে।? বড্ড রোগ। হয়ে গেছ ম।। পুত্রের মমতাপুর্ণ কথায় চিস্তামণির চক্ষে জল আসিল, দুই বৎসর পু

আট স্মপস

১৪ | কুশদহ | [ বৈশাখ, ১৩২৫

রি

টিটি শপ সপ্ত সস শিস স৬ি

বিরহে তিনি ষে কেমন করিয়া কাটাইয়াছেন তাহ তাহার অন্তর্যামী দেবতাই জানেন আহার নিদ্রা কিছুই নিয়মিত ছিল ন!, মানসিক এত উদ্বেগ অশান্তি মুত্বেও যে শরীর টি'কিয়। আছে এই আশ্চর্য

যে রতিকাস্ত বাড়ী ফিরিতে একটু বিলম্ব করিলে তিনি পথচাহিয়া থাকিতেন, কন্তা কমলাকে দেখিতে পাঠাইয়। ছুই দিনের বেশী চারি দিন হইলে, পুত্রের জন্ত চঞ্চল হইয়া পড়িতেন, পাশের ঘরে রতিকান্তকে শোয়াইয়' মাঝে মাঝে রাত্রে আসিয়। ভাল করিয়া! মশারীটি গু'জিয়া দ্রিতেন, পাছে মশা কামড়াইয়া, পুত্রের নিদ্রার ব্যাঘাত করে। গ্রীষ্মের সময়. কপালে হাত বুলাইয়! দেখিতেন নিদ্রাবস্থায় ঘামিয়। উঠিয়াছে কি না, সেই রতিকাস্তকে ছুইবৎসর ছাড়িয়া থাকিতে হইয়াছিল, সে কি কমছ্ুঃসহ বেদনা যখন প্রিয়জনের ' সহিত ইহলোকের রন্ধন একেবারে ছিন্র হইয়া যায়, তখন তীব্র বেদনার প্রথম আখাত অত্যন্ত কঠিন হইলেও শীঘ্রই সহিয়া যায়, কিন্ত পৃথিবীতে বাস করিয়া, দৈব-হুর্বিপাকে যে বিচ্ছেদ ঘটে, তাহার ব্যথা বড় মর্মান্তিক _ বড় সাংঘাতিক। রতিকান্তের বিরহে জননী যে যাতন৷ সহ্য করিয়াছিলেন তাহ স্নেহময়ী মাতা ভিন্ন অন্ঠে কি বুঝিবে? সতীকাস্ত, উম্বাকান্ত যাতাকে কত সাস্তবনা দ্রিত,তাহাদের যুখ চাহিয়া তিনি কোনও রকমে প্রাণ ধরিয়াছিলেন। শ্রীকান্ত বাবু বৃদ্ধ বয়সে নিজেই দছুর্দৈব ঘটনায় যথেষ্ট সম্তপত তইয়া) কোনও রকমে দিনাতিপাত করিতেছিলেন,তখন সকাতর! পত্রীকে আর বিশেষ কি প্রবোধ দিবেন? তবে রক্ত মাংসের সম্পর্ক না থাকিলেও, এই হরদাদ। পরমাত্মীয়ের কাজ করিয়াছেন। প্রাণম্পশী সান্তনা আশ্বাস- বাক্যে বাট়ীর প্রত্যেককেই প্রত্যহ কত মতে বুঝাইতে চেষ্টা পাইয়াছেন, ভগবান বিশ্বাসীর সে সাস্বনা-বাণী জরযুক্ত করিয়াছেন।

মাতার অশ্রু দর্শনে, রতিকাস্ত চঞ্চল হইয়া উঠিল, চিস্তামণি আচলে চক্ষু মুছিয়। কহিলেন, বাব! রতি, তুই চারটে পাঁশ কর! ছেলে, তোর কত বিছ্ো, কত বুদ্ধি। তোর ছুই দাদা উকিল হয়েছে বোলে, তোকে আর. আইন পড়তে দিলুম না, এই জমিদারী দেখবার জন্তে তো একজনকে চাই, উনি পেন্দান নিয়ে ঘরে থাকলে কি হবে, এখন কি আর বয়সে, ঘুরে ঘুরে দেখ! শুনো কোরে বেড়ীতে পারেন? তুই-ই ঘরে থাকবি, সব দেখা শোনা, করবি। তা৷ কার কুপরামর্শে এমন ফা্যাসাদ ঘটিয়ে বস্লি তুই আমার ্থবোধ ছেলে, এমন অন্ঠায় কাজ তোকে কি সাজে বাব!

১৭ম বর্ষ, ১যু সখ্য] . প্রায়শ্চিত্ত ১১. 2225 |

খপ্পরে শট তি প্র সা সর্প সি সত ভন শি পো শি পি ওসি

কমল! তোর জন্তে বড় কাতর হয়েছে,তাকে আনতেও পারি না, এলে তার ত্বর চলে না হরদাদাকে সঙ্গে নিয়ে তার কাছে একবার যাবি, তোকে দেখলে তবে তার বুক ঠাণ্ডা হবে। অনেক দ্বরের পথ, কাউকে পাঠাতেও পারি না। ছোট ছেলেটি নিয়ে অল্পবয়সে বিধবা হোলো, বাছার আমার অদৃষ্ট বড মন্দ, ছোট তাইটি অন্ত প্রাণ। তোকে কাছে পেলে দু'দিন থাকবে ভাল। আর মহেশ বাবুদেরও চিঠি পাঠিয়েছি, আমি তোরে শীগণীর সংসারী কোরতে চাই।

রতিকান্ত নিঃশব্দে মাতার এতগুলি কথ! শুনিয়া লইল। যতখানি দোষ সাব্যস্ত করিয়া তাহাকে ছুই বৎসর কাল কারাবদ্ধ রাখা হইয়াছিল, ততখানি দোষ তাহার না থাকিলেও, সে নিজেই নিজের ভ্রম, ক্রটির জন্য যথেষ্ট লজ্জিত অনুতপ্ত হইতেছিল। এখন কেমন করিয়া, কোনও একটি বড় কাজের“মধ্যে নিজেকে সমর্পণ করিয়া, অপরাধের দায় ২ইতে মুক্তি পাইবে. আঞ্কাল সে কেবল ইহাই ভাবিতেছে, তাই মাতার *.গুলি তাহার প্রাণে বড় বাজিল। মাতার পায়ের ধুল৷ মাথায় লইয়৷ কহিল, আমাকে তুমি মাপ কর মা, তোমার আর কোনও ভয় নাই, এবার তুষ আমায় বিশ্বাস কর, তোমার মনে ব্যথা লাগবে এমন কাজ আর আমি কোরবে। ন।।

মাত। সন্নেহে পুত্রের পলাট চুম্বন করিয়া কহিলেন, সেকি বাপ, আমি [ক তোর ওপর রাগ করেছি যে মাপ কোরবে।? ছেলে বত ভূলচুক করুক, মার কাছে তার কোনো লঙ্জ! নেই, ভগবান তোর মঙ্গল করুন।

যতি বাখিয়। স্নেহময়ী জননী পুত্রের মাথায় হাত বুলাইয়] দিতে দিতে কহিলেন, সোনার দেহ কালী হয়ে গেছে সবাই শীগগীর কোরে বিয়ে দ্রিতে বলছে, আমি কিন্থ মহেশ বাবুর প্রত্যাশায় বসে থাকতে পারবো না. দেশে ললিতার মতে! মেয়ে কত পাওয়। যাবে, বৈশাখ মাসে আমি শুভ কাজটি সুতাল1 তালিতে সারতে চাই-ই, তা তোকে শুনিয়ে রাখলুম |

রুতিকান্ত উত্তর দিল না, দাসীর আহ্বানে চিন্তামণি উঠিয়! গেলেন, রতিকান্ত বুঝি ধ্যানে বসিল। তাহার মানসে ললিতার ছবি জাগিয়! উঠিল, ছুইবৎসর পূর্যেকার আনন্দ-রপ্রিত দিনগুলি যেন চক্ষের সম্মুখে ভাসিয়া বেড়াইতে লাগিল, হাস্ত-পরিহাস-নিপুণ বাক-চতুরা ললিতার সরল মাধুরী, চা-এর টেবিলে বসিয়া, সন্ধ্যা সকালে, গল্প-গুঞ্কর, ললিতার লাজ-নত্র

১২ .. কুশদহ পৃ বিশু, ১৩২৫

৯৬১১৬১৩৪৬১৩ ৩স্ সিসি স্পিন সস সস সিসি সিসি সসপসিস্সিতী লো ০, সত ৩5০০

ব্যবহার, মহেশ বাবুর সহিত যুক্তিপূর্ণ তর্ক, সবই. একে একে রতিকান্তের

মনে পড়িতে লাগিল। |

কারাগৃহে আত্মীয় শ্বজন বিচ্ছেদ-বেদনার স্ৃতি-মধ্যে, ললিতার ম্বতিও তাহার মনে তেষনি পরিস্ফুট সমৃজ্জল ছিল আর ললিতা,_সেও কি এমনি সমভাবে, তাহার শ্বতিকে হৃদয়ে ধরিয়! আছে? যদ্দিও তাহার নিকট হইতে কখনও তাবায় প্রণয়বাণী সে শুনিতে পায় নাই, কিন্তু দৃষ্টির মধ্যদিয়া, সরল অস্তরের যে ভাবা পড়িতে. পার! যায়, তাহাই কি নব প্রণয়ীর পক্ষে যথেষ্ট নয়? ছুই বৎসরের দীর্ঘ দিন গুলির অন্তরালে, সে ছবি কি কিছুম্নান হয় নাই? এতথানি আশার কথা তে! বিশ্বাস হয় না, কিন্তু অবিশ্বাস করিতেই ব৷ প্রবৃন্ি হয় কই? রতিকান্তের প্রণয়-ধ্হ্বল-মুদ্ধ-মানস, বক্ষের নিভৃত কন্দরে . বসিয়া গাহিতে লাগিল *ললত1, চিরুমনোরমা ি প্রয়তমে, এই লাহ্ছিত টি কি তুর্মি তেমনি সাদরে গ্রহণ করিতে পারিবে £”*

তৃতীয় |

ছেলেদের হৈ-হৈ শব কাণে আপিবামাত্র, হরদাদা ঘরেরু জানালাট। তেজাইয়। দিলেন। কিন্তু “যেখানে বাঘের ভয়, সেইখানে সন্ধ্যে হয়? পুরাতন ' গ্রবাদবাক্য মিথ্যা হইবার নয়। ছেলের দল হরদাদার দরজ। ঠেলিয়া ঘরে ঢুকিয়া পড়িল, কিন্তু গোটা কতক না ঢুকতেই ছোট্ট ঘরটি ভরিয়া গেল 'হরদার্দ। তামাক সাঞ্চিতেছিলেন, সশব্যস্তে কহিলেন, হ্যা, হ্যা, আর ভূতর ধূল গুলে! ঘরে ভিতর দিয়ো না, চল আমগাছ তলায় বোসবে চল, আমি আসছি ছেলের দল যখন তখন আসিয়া হরদাদাকে লইয়। গল্প গুজব করিতে বসিত। আজ বোধহয় দাদার গল্প বলিবার মতে মেজাজ ছিলনা. সেই জন্যই দূর হইতে এই ক্ষুত্র বাহিনীটিকে দেখিয়াই, উহাদের দৃষ্টিকে এড়াইবার জন্ত জানাল! ভেজাইয়! দিয়া পাব পাইতে চাহিয়াছিলেন। কিন্ত তাহার সে কন্দী ব্যর্থ হইয়া! গেল। কোনোপ্রকার অছিলা আর এখন নিরর্থক জানিয়া, তিনিও ভাল মানুষটির মতে। হ'কা হাতে দলবল লইয়] আম- গাছটির তলায় আসিয়। বসিলেন। অমুলযু বলিল, আজ কিন্তু খুব জিতেছি, ওদের দল আজ. মোটেই খেলতে পারে নি।

ব্রজলাল কহিল,ওদের স্কুলের দল, ছুই বার থেকে আর আমাদের সঙ্গে : ম্যাচ দিতে পারে না, ওদের পাও] ছিল শিবনাথ, সে মরে গিয়ে পর্যন্ত ওরা কাণ্ডেনশুন্ত হয়ে পড়েছে।

১*ম বর্ষ, ১ম সংখ্য।] ্রাযস্চিত ১৩

পাশ ৮৭ শী এপ সরি পাস পন পি ৯৯ সি পা শাসিত সা ৯১ পস সস পিস সস পিন শিস সপ -

অক্ষয় কহিল, শচী বলছিল, রতিদাকে না কি ওরা কাণ্ডেন কোরবে। |

অমূল্য কহিল, তা হোলে কিন্ত সামাল সামাল ডুবলে তরী, রতিদা পাক। থেলোয়াড়, উনি যদি কাণ্তেন হন, আমাদের দল নীচু হয়ে যাবে।

হরদার্দা কহিলেন, তা এপাড়ার দল রতিকে ওপাড়ার দলে যেতেই বা দেবে কেন? তোমরাই কেন রতিকে আগে থাকতে কাণ্তেন কোরে নেও না। অমূল্য অক্ষয়ের চোখে চোখে টেলিগ্রাম হইয়া গেগ, পুলিশ- চিহ্ছিত, রতিকান্ত এখন যে ছেলেদের দলপতি হইবার অনুপযুক্ত, প্রত্যেক অতিভাবকই ছেলেদের তাহা বুঝাইতে স্থুর করিয়াছেন, ছেলেদের দলে তা লইয়া বেশ একটি আন্দোলন চলিয়াছে। রতিকান্তকে সকলেই যথেষ্ট ভালবাসিত, শ্রদ্ধা করিত, তাহার নেতৃত্বে সকলেই গৌরব অনুভব করিত, কিন্ত গুরুজনের অবাধ্য হওয়া! উচিৎ নয় এবং হরদাদ1 রতিকাস্তকে অত্যন্ত স্নেহ করেন) সেজন্য তাহাকে কথার আভাস জানাইয়া বেদনা! দিতে কাহারও ইচ্ছ! হুইল না। |

ব্র্লাল বলিয়া উঠিল, একট গল্প বলুন দাদা, খেপে টেলে ক্লান্ত লয়ে পড়েছিঃ শুনে ঘরে যাই। অক্ষয় কহিল, সেই ভাল,'কিন্ত আঙ্জ একটা নূতন গ্লর চাই দাদা, হত,কীর মহিম! আর প্রচার কোরবেন. ন।

হরুদাদ্দ1! মাথ! নাড়িয়া কহিলেন, হরিতকীর নিন্দে ভুলেও করে! না ভায়া, বয়েস পাকুক,ওর কদর বুঝবে তখন দীনেশ কহিল, হরদ1, আমি একটা পৈত্রী লিখেছি, সেটার নাম দিয়েছি 'হবিতকী স্ভোত্র'-_সতিয !

সত্য কহিল, ভেডিংটাই যা লিখেছ, টপট্রীর তো৷ মোটে এক কলি লিখে আর মেলাবার যোগ্যত] হয় নি,ভারি আমার পৈট্রী' এই শুনুন হর দা,__

জয় জয় জয়, হত্তকীর জয়, গাও কোটী মিলে-_

দীনেশ অপ্রস্থত হইয়াছিল কিন্তু হারিলে লোকের লঙ্জাটা রাগের আকারেই প্রকাশ হয়, সংসারের নিয়মই এই। তাই সে কহিল, এক কলিই লেখ, দেখি একবার ষযোগ্যত1/ পৈড্রী অমনি লিখলেই হলো! না, & ছু'লাইন লিখতে কাল রাজ আমার হিষ্বী জিয়োগ্রাফীর পড়া হয় নি।

হরদাদ1] আশ্বস্ত হইয়! কহিলেন, হবে হবে, অমনি কোরেই হবে, এক এক কলি কোরেই লিখতে লিখতে গোট! টা হোয়ে যাবে, ব্যস্ত কিসের। *

অক্ষয় আবার তাড়া দিল-_গল্প বলুন হুর দ1।

১৪ কুশদহ [বৈশাখ, ১৩২৫

হর দাদ! হুকাটি মুছিয়!,সাবধানে এক পাশে রাখিয়! গল্প আরম্ভ করিলেন। এগ্টণন্স পরীক্ষায় ফেল হইয়া, তাহার কত খানি বৈরাগ্য হইয়াছিল, যাহার প্রবল ধাকায় তিনি আঠার বৎসর বয়সে সন্গ্যাসী সাজিয়। গ্রাম ছাড়িয়া বাহির হইয়। পড়িয়াছিলেন, বাড়ীতে বাপ মা ছিলেন না, ছিলেন এক দূর সম্পর্কীয় মাসীমা,তাহার উপর স্নেহের আধিপত্য বড় একট! ছিল না,যেটুকু ছিল , বুঝি সেটা লৌকিক মৌথিক | কাজেই পথে পথে ঘুরিয়া, কতদিন অনশন- ক্লেশ সহ্য করিয়াও ঘরের টানে আর তাহাকে কিরাইতে পারে নাই। গেরুয়ার চাঁপরাশ একবার পৰিতে পারিলে আর যেখানকার দুম্নার বন্ধ হউক,দেব- মন্দিরের প্রাঙ্গণ তে। বন্ধ হুইতে পারে ন।। হরদাদ। অনারাসেই তীর্থে তীর্থে ঠাকুর-মন্দিরে ছু চার দিন কারিয়। বাস করিয়া বেড়াইতে লাগিলেন, কিন্ত তাহার প্রাণ যেন বড় ফাকা, বড় উদাস বোধ হইত, হঠাৎ এক দিনের একটি ঘটন! তাহার জীবনে এক নূতন অঙ্কের সুচনা করিল এক ধনাঢ্য জমীদার দেবদর্শনে আসিয়াছিলেন, মন্দিরে সন্ত্রীক পৃজারতিতে নিবিষ্টচিত্ত ছিলেন। দুইবৎসবের একমাত্র আদরিনী কন্ঠা মুমি যে এই অপরিচিত দেশে, ভিড়ের মধ্যে, বার বৎসরের বালক' ভৃত্য হুরিয়ার কোলে, মুল্যবান গহুনাদি পরিয়া এতক্ষণ রহিয়াছে সে কথ। কাহারও মনে নাই। দরোয়ানকে কাপড় আনিবার জন্য পাঠান হইয়ীছিল। একজন ছুন্ঝ লোক সহজেই নিঃসঙ্গ বালক ভৃত্যটির নিকট হুইতে মুনিকে চাহিয়া! লইয়া বাহিরের দিকে গেল। এদিকে সাধু-সঙ্গ-গুণে হরদাদ্ার গাজায় দম দেওয়। অভ্যাস হইয়া গিয়াছিল, তিনি অদুরে বসিয়া গাঁজা টিপিতেছিলেন, ছুষ্ট লোকটির চেহার। তাহার চথে তাল লাগে নাই, ফুটন্ত ফুলের মত সুন্দর মেয়েটিকেই বা সে কোলে লইয়া বাহিরের দ্বিকে গেল কেন? তিনি গজ! ফেলিয়া বালক ভূত্যটির কাছে গিয়। জিজ্ঞাস করিলেন কোথায় গে”? খুকীকে নিয়ে গেল কেন? ভূত্য কহিল, বাবু খুকীকে চেয়েছেন, খুকীর নামে পুজে! হবে; তাইতে নিয়ে গেল। হরদাদা আর দ্বিরুক্তি না করিয়া লোকটার সন্ধানে গেলেন।

চতুর্থ

হরদাদাকে নিস্তব হইয়। বনিয়া থাকিতে দেখিয়া, কেহ কেহ হাপিয়। 'উঠিল। অক্ষয় চঞ্চল তাবে কহিল, তারপর দাদ! হরদাদ। কৃঝি এতক্ষণ মানস-চক্ষে সেই বিগত ঘটনার স্থতি-ছবি দেখিতেছিলেন, মুনির

১০ম বর্ষ, ১ম সংখ্যা] প্রায়শ্চিত ১৫

পর পিস,

হাসি ষাখা, কুন্ুম-্ছকুমার মুখখানি নিমিষে কেমন করিয়। তাহার বক্ষের সমস্ত শুন্ঠত। ভরিয়। দিয়াছিল, তার কণস্বর, মধুর আহ্বানে কেমন করিয়া তাহার হৃদয়ে শুপ্ত-বাৎসল্য ভাবকে জাগাইয়! তুলিয়াছিল, কি করুণমর্মম্পর্শা, অথচ আনন্দপুর্ণ সেই ম্ম,তি !

তালবাসিয়া, শ্েহ করিয়া, সেই শ্পেহের ধনকে কালের নির্মম করে বিসর্জন দিতে বাধ্য হইয়া যে দাগ! পায়, সে এক রকম তাগাহীন সন্দেহ নাই, কিন্ত যে কখনও ভালবাসার স্বাদ্দ পায় নাই_-ষে কখনও প্রাণ ঢালিয়! সনে মমতা করিবার অবসর পায় নাই, তার চাইতে হতভাগা জগতে বুঝি আর নাই। মনুষ্য জীবনে বিশ্ব-দেবতার সর্বশ্রেষ্ঠ দানেই যে সে বঞ্চিত রহিয়। গেল। হরদাদার মনে পড়িল, তগবানকে ধন্তবাদ যে, জীবনে সে বঞ্চনার হাত হইতে তিনি এড়াইতে পারিয়াছেন ছোট বেলায় পিতৃ মাতৃহীন হইয়া, আত্মীয় বন্ধুহীন গৃহে, নির্মল ন্সেহের সম্ভোগে তিনি বঞ্চিত হইয়া সংসারে বর্ধিত হুইয়াছিলেন, ভাই বোনেব সরল পবিত্র ভালবাসা, স্নেহের মাধুর্য রসের ছোপ তীহার মন্তঃকরণে ধরাইতে পারে নাই। একটু বয়স হইলে, লেখা পড়ায় তিনি বিশেষ মনোযোগী হইয়াছিলেন। তাহার মনে মনে উদ্দেশ্য ছিল, লেখা পা শিখিয়া তিনি একজন বডলোক হইবেন। কিন্তু প্রথম উদ্যমেই তাহার সমূহ চেষ্টা_ আশা ভঙ্গে তিনি যেন একেবারে নিরুৎ্সাহ হইয়া! গেলেন। সংসারে তাহার স্নেহের বন্ধন ছিল ন।,তবু তিনি গ্রাম ছাড়িয়া ১৭ বৎসর বয়সের মধ্যে তখনও সহরে যান নাই, কিন্তু তারপর সংসারের নিকট ছুটী লইয়া! একেবারে বাহির হুইয়! পড়িলেন:

কিন্তু প্রাণের মধ্যে দিনের পর দ্দিন যেন একট কিসের শৃগ্ঠতা বোধ হইতে লাগিল, তাহার মনে হইল, শুন্তত। বুঝি চিরদিনই তাহার বক্ষ জুড়িয়া আছে, শুধু এতদ্দিন তাহার বুঝি চিনিবার শক্তি হয় নাই, কিন্ত শুষ্ঠত1 কিসের জন্ঠ তাহার সন্ধানই ব। মিলিবে কোথায়? |

তারপর যখন সেই ছৃষ্ট লোকটার অনুসরণ করিয়া দেখিলেন, সে ছোট্ট মেয়েটিকে জিজ্ঞাসা করিতেছে--থেলেন। লইবে, কি থাবার খাইবে ? তাহাকে দেখিয়া যেন লোকট! থতমত খাইয়া! গেল, তিনি জিজ্ঞাসা করিলেন, কার খুকী? লোকটার মুখে অপরাধীর ছাপ ষেনন্পষ্ট আক। ছিল। বালিকাকে হাত বাড়াইয়া লইতে যাইবামাক্র, সে যেন পরিপূর্ণ নির্ভরতার সহ্ত্ তাহার কোলে ঝাপাইয় আসিল, অ$ধ আধ কে কহিল) আমি বাবা যাব,

১৬. কৃশদ্হ 1 ৈশাখ। ১৩২৫

সী সপ অর্াসিত দি ৬৪ ৯৪ ৯০৬ স্লিভ পি লা ৫৬ তার ০৫ সতত সাকির ৯৫ সিতাস্টিতন, ৩৯১০৯২৫৯ লাকি লী পি সি জিপি পিপিপি অসম তাপস পা পাপ পাপা অত সিল সী তত সিসি ৬৫৯৮

ফুল নেবো-_থাব! খাব, ইতি পূর্বে যদিও সেই দুষ্ট লোকট। মুনিকে ফুল খাবারের প্রলোভন দেখাইতেছিল, মুনি কিন্তু তাহ। পছন্দ করে নাই। হরদাদা বাপিকাকে বুকে চাপিয়! চুমা খাইলেন-__কি অপূর্ব আনন্দরসে তাঁহার অন্তরায্মা অভিষিক্ত হইয়া উঠিল তীহার মনে হইল, নিমেষে আজ তাহার হৃদয়ের সেই নিবিড় কালে! মেঘ ভেদ করিয়। যুনির সমৃজ্জল গোলাপী যুখখানি সেইখানে ঝল ঝল করিতেছে মুনির পিতা মাতা কৃতজ্ঞ হৃদয়ে বার বার হরদাদীকে ধন্যবাদ জানাইলেন।

তাহার পরিচয় লইয়! সহজেই এই আত্মীয়-বান্ধব-হীন যুবাটির প্রতি শ্নেহশীল

হুইয়া পড়িলেন। মুনি তিন চার দ্বিনেই হরদাদার পক্ষপাতী হইয়৷ উঠিল।

হরদাদ্াা জীবনে যাহার স্বাদ পান নাই, আজ হঠাৎ সেই স্নেহামুত পানে ষেন

বিভোর হইলেন, সুতরাং যখন মুনির পিত। মাতা তাহাকে তাহাদের

সঙ্গে লইতে চাহিলেন, যুনির মায়ায় পড়িয়৷ সহজেই তিনি সুন্মত হইলেন। পাধের গেরুয়া ছাড়িয়। গাঙ্জার কলিক] বিসঙ্্ছন দিপ্লা,ভদ্র ছেলের যতে। যুনিদের দেশে গেলেন। মূনি তাহাকে মায়ার শত বন্ধনে বীধিপ্না, অবশেষে সেই

সমস্ত, বন্ধন নিমেষে ছিন্ন করিয়া ছয় বৎসরের যুনি কোথায় পলাইয়। গেল।

তাহার আবির্ভাব যেমন আকন্মিক, তিরোভাবও তার চাইতে কিছু কম

বিল্ময়কর নহে। হরদ্রাদার বুকে বড় বাঞ্জিল, সন্তানহীন শোকাতুর জনক-

জননীর স্বাদ. না রাখিয়া, তাহাদের নিকট একবার বিদাক্স-বাণী

উচ্চারণ না করিয়া, তিনি আর এফবার সংসারের বাহির হইয়।

পড়িলেন। মুনি-শৃন্ত ঘরবাড়ীর দৃশ্য যেন তাহার চক্ষে তণ্ত শলাকার মতো

বিধিতেছিল, সে অসহ্য দুশোর হাত হইতে অব্যাহতি পাইবার জন্থ অনির্দিষ্ট

পথে আর একবার যাত্রী হইয়। বাহির হইলেন কত দেশ ঘুরিলেন। কালে

শোকের জাল! লাঘব হইয়! আসিল, কিন্তু মুনির স্বতি তাহার অন্তর-পটে

চির সমুজ্জল হঃয়াই রহিল।

কত দেশ ঘুরিতে ঘুরিতে হঠাৎ শ্রীকান্ত বাবুর সহিত আলাপ হইয়া গেল।

&কে সন্গ্যাসীর নিকট হবিতকীর মহত্গুণ শুনিয়। শুনিয়। ক্রমে হরদাদ] হতী- তকীর একজন পরম ভক্ত হইয়] উঠিয়াছিলেন। শ্রীকান্ত বাবুর একাস্ত অনুরোধ এড়াইতে না পারিয়া তিনি তাহার সহিত তাহার দেশে আদিলেন। বার বছরের রূতিকান্তকে দেখিয়া, সহজেই তাহার চিত্ত আবার একবার থলিয় গেল,

কর্তদিন পরে আবার তিনি সেই স্বেহাম্বাদ ফিরিয়। গ্রহণ করিলেন।

১০ম বর্ষ, ১ম সংখ্য। ] কুশদহের ইতিহাস ১৭

হরদাদার সরল,সুন্দর স্বভাব সকলের চিত্রকেই আকর্ষণ করিল অবশেষে তাহার সহিত গ্রাম শুদ্ধ লোকের দাদ! সম্পর্ক হইয়া! গেল যদিও তাহার বয়স তখন ৩৫ | ৩৬এর বেশী হয় নাই, কিন্তু ছেলে হইতে বুড়া পর্য্যস্ত সকলেই তাহার অন্তরঙ্গ হইয়। উঠিল। তিনিও এই পরিবারের সকলের পরমাত্মীয় হইয়। দিনের পর দ্দিন, গলপ করিয়া, আর সর্বরোগ-হর! হরীতকীর মহিম। প্রচার করিয়। নিরুদ্বেগে কাল কাটাইতে ছিলেন

হরদাদার অতীত জীবনের এই করুণ ইতিহাস, ছেলেরদলের সরল চিন্তকে নিবিড়ভাবে স্পর্শ করিয়াছিল। গর শেষ হইয়! গেল, কাহারও মুখে কথ! নাই, হঠাৎ সে নিস্তব্ধত! ভঙ্গ করিয়া যতীন বলিয়া উঠিল। তো গল্প নয় হরদা, যে সত্যিকার কথা !

বাণকের মনে গল্পের মানুষদের ছুংখ বেদনার কথা সত্যকার মতই আঘাত দেয়, কিন্ত সে গুলি সত্য নয়_কাল্পনিক মিথ্যা, এই তাবিয়াই সকলে সে বেদনার কথা মন হইতে ঝাড়িয়া ফেলে কিন্ত, আজ হরদাদার নিকট গল্পচ্ছলে যে কাহিনী গুনিল, তাহার ব্যথা তো সহজে মন হইতে ঝাড়িয়া ফেলিবার নয়, যতীনের মনে সব চাইতে বুঝি তখন এঁ কথাটাই উঠিতেছিল। (ক্রমশ)

শ্রীসরসীবাল। বন্দু

ুুস্পচক্গক্রেল্ ইইভিত্ঞাক্ন

বণিক, বঙ্গদেশে বণিকের শ্রেণী পাচটি। ব্যবসাভেদে শ্রেণী, ভেদ হইয়াছে বলিয়া! মনে হয়। প্রথম শ্রেণী মণিবেনে অর্থাৎ সাহারা হী! মুক্ত1 প্রবালাদি বিক্রয় করেন। দ্বিতীয় শ্রেণী গন্ধবণিক। এই শ্রেণীর লোকের ব্যবসা অনেক প্রকারের প্রথমতঃ, গন্ধদ্রব্য-_ চন্দন, কপূর, কন্তরী, কুম্কুম, অগুরু, মুরামাংসী, জঠামাংসী প্রস্থৃতি। দ্বিতীপনতঃ)-_ এলাচ, লবঙ্গ, জারফল, দারুচিনী, ধনিয়া,মনুরী প্রস্তুতি মসলা! তৃতীয়তঃ- বধ প্রস্ততের উপকরণ--যথাঁ, গুলঞ্চ, ক্ষেতপাপড়া, কুমটা। কণ্টিকারী, সুট,7-ওলটকথ্বল, রক্তকম্বল ইত্যাদি চতুর্থতঃ, লবগ। গন্ধবণিকের।” গু

১৮ কুশদহ | বৈশাখ, ১৩২৫

কেধল যে যে উপরি লিখিত জব্যগুলির ব্যবসায় করিয়। ক্ষান্ত থাকেন তাহা নহে, গুহস্থের যাবতীয় প্রয়োজনীয় দ্রবা তাহারা বিক্রয় করেন। সোনার বেনের! স্বর্ণব্যবসায়ী অর্থাৎ পোদ্দবানী করেন। টাকা ধার দিয়! সুদ গ্রহণ তাহাদের প্রধান কার্য পঞ্চম বণিকের৷ কেবল শঙ্খ প্রস্তুত বিক্রয় করেন। কাংস বণিকেরা' কাসার দ্রব্য প্রস্তত বিক্রয় করিয়া থাকেন। বেনের ছেলের! প্রায়ই চাকরী স্বীকার করিতে নারাজ। জাতি ব্যবসায় করিয়৷ জীবিকা নির্বাহ করিতে সকলেই প্রায় উদ্ভোগী। বণিকগণের মধ্যে এইরূপ আত্ম-নির্ভর ক্ষমতা আছে বণিপ্নাই আজও দেশীয় লোকের হস্তে যাহা! কিছু ব্যবদাবাণিজ্য রহিয়াছে বণিক পুত্রের! তাঁতি প্রভৃতি শিল্পীগণের ন্যায় চাকরীর মোহে পড়িলে আজ কি হুর্গীতি ভোগ করিত তাহ] রলা যায় না :

ভৃগুরাম-সংহিতা বা পরশুরাম-সংহিতায় বণিকের এই পাঁচটা শ্রেণী দেখা য়ায়। তাহা হইতে বুঝা যায়, একই বণিক ব্যবসায় ভেদে পাচ নামে পরিচিত হইয়া! আনিতেছেন। বৃহব্বশ্পুরাণের মত অন্যরূপ, উল্ত গ্রঙ্থে দেখা যায় অন্বষ্ঠ গন্ধবণিকের পিত: ব্রাঙ্গণ এবং মাতা বৈশ্ঠা কাংসকার শঙ্খকাণ্র গন্ধবণিকের স্তায় উৎপন্ন। কিন্তু স্ুবর্ণবণিকের পিত1 অন্বন্ঠ মাত! বৈশ্ঠা পরশুরাম সংহিতার মতে গন্ধবণিকে রও পিত। অন্বষ্ঠ মাতা রাজপুতকন্তা যাহা! হউক, ব্রন্গবৈবর্ত পুরাণ মতে বণিক জাতিগুলি সৎশূদ্র মধ্যে পরিগণিত বণিকেরাই যে প্রাচীণ কাষোর বৈশ্তজাতির বংশধর তাহ!তে সন্দেহ মাত্র নাই। বল্লালচরিত পুস্তকে উল্লিখিত আছে, গোৌঁড়ে অর্থাৎ বঙ্গদেশে বণিকেরা সঙ্গদোষে ব্রাজ কোপে আচার বর্জিত হওয়ায় পতিত হুইয়াছে।

এক্ষণে দেখিতে হইবে বণিকজাতি কতকাল হইতে' গৌঁড়দেশে (বাংলায়) বাস করিতেছেন, কোথ। হইতে বা তাহাদের আগমন হইল এবং কিরূপেই ব৷ তাহার সঙ্গদোষে পতিত হইলেন

বণিকজাতির মধ্যে প্রবাদ আছে যে, তাহার! বৎস রাজের রাজধানী কৌশন্দী নগরে সুখে বাস করিয়া ধন সম্পত্তি বৃদ্ধি করিতেছিলেন। পরে কোন কারণে একদল গুর্জর দেশ হইয়া উড়িব্যার ভূবনেশ্বরে *ও পরে গঙ্গাতীরে আসিয়৷ বাস করেন। তাহারা কৌশন্বী বণিক নামে পরিচিত “আর একদল গঙ্গাপ্রবাহের অনুসরণ করিয়া বিশার্ণ পর্ধতের সাহুদেশ

১ম বর্ষ ১ম বা সি ইতিহাস ্‌ ১৯

০০:৬০:22 পেথ শত পি এসি শি কন শট পট ০৯ ৩৯

লৌহিত্য র্থাৎ বহ্ষপুত্র নদের রতীরস্থিভ পরাগ এজ্যাতিবপুরে.( আসামে ) বাস করেন এবং প্রাগ জ্যোতিষপুর বণিক নামে অভিহিত হন

যাহা হউক,গন্ধবণিকেরা যে কৌশম্বী হইতে বাংল! উড়িষ্য। আসামে আসিয়া! বাস করেন তাহ] বুঝিতে পারা যাইতেছে কৌশন্বীতে তাহার! নিরুপদ্রবে বাদ করিতেছিলেন সন্দেহ নাই। সম্ভবতঃ, কোন বিশেষ উপদ্রব বা বিপ্লব উপস্থিত না হইলে স্ৃদেশ ছাড়িয়া দলে দলে বিদেশ যাত্রা করেন নাই। যখন কৌশম্বীপতি বখ্সরাজের নান পাওয়। যাইতেছে, তখন তীহারই সময়ে ব| তাহার বাঙ্গ্যাবসানে ষে এই উপনিবেশ স্থাপন ঘটিয়াছিল তাহা মনে করা যাইতে পারে।

ইতিহাস পাঠে অবগত হওয়া যায় যে, বসরা ৭৮৩ খৃষ্টানদের পূর্বে গৌড় বঙ্গ জয় করিয়াছিলেন। কিন্তু অল্পদিনের মধ্যেই ঞব ধাবাবর্ষ কর্তৃক পরাজিত হইয়৷ মরুভূমিতে পলায়ন করিতে বাধ্য হন। সম্ভবতঃ, বৎসরাজের পলায়নের সময় ব্লাজধানীর সমৃদ্ধ নগরবাসিগণ তাভার সহিত পলায়ন করিতে বাধ্য হন। কিন্তু মরুভূমিতে অধিক দিন অবস্থান করিতে অসমর্থ হইয়া বণিকগণ প্রথমে গুজরাটে, পরে মধ্যদেশে এবং শেষে উড়িষ্যায় বঙ্গদেশে আসিয়া বদতি স্থাপন করিতে বাধ্য হইয়।- ছিলেন কেননা, এসময় গৌড় উড়িষ্যা পাল রাঙ্জগণের শাসনাধীনে শান্তি ভোগ কব্সিতেছিল। উত্তরাপথে খুষ্টায় অষ্টমশতান্দীর শেষভাগে নবমশতাবীর প্রথমভাগে পুনঃ পুনঃ রাঙ্জবিপিব ঘটার, .বণিককুল আকুল হইয়। পড়েন এবং শেষে কেশরী পালরাঞ্জগণের শাশ্রয়ে বা করিয়। নির্দ নিজ ব্যবসায়ের উন্নতি সাধন করিতে থাকেন পাল রাজার! বৌদ্ধ ছিলেন। দেশে তখন বৌদ্ধধন্থ্ের প্রবল আ্রোত চলিতেছিল ক্থতরাং সে. সংশ্ববে বণিকগণের ভিন্ন আচার হওয়া অসম্ভব নহে।

প্রবাদ আছে, বণিকগণ ষখন বঙ্গদেশে প্রথম আসিয়াছিলেন তখন তাহারা ঘোর শৈব .ছিলেন। আমরা দেখিতে পাই, চাদ সদাগর : শিবের. উপাসক ছিলেন। শিব ভিন্ন আর কেহ উপান্ত নাই--থাকিতে পারে না, শিব সকলের ঈশ্বর এই অটল বিশ্বাসের উপর নির্ভর করিয়! তিনি মনস। পুক্গা৷ করিতে অসম্মত'হন। মনসাও নাছোড় বান্দ!। ; চাদ সদাগরের নিকট পুজা ন। পাইলে জগতে তাহীর পু প্রচ।রিত হয় ন৷ এই জন্চ তিনি অশেষ

২৩ কুশদহ [ বৈশাখ, ১৩২৫

পে এস লি ০৬ পে এ. এস, ছি পন এসি "৬ ত৯১ * ক. চি «সি ৯. এজ ২৬ (৫টি দি লাম, এসি 2৯ শী তে সরি পনি পে পর জন এপ পান (৬ সি এসসি রে এস, পাও

প্রকারে চাদকে নিগৃহীত করিতেছেন। একে একে চাদের বাণিজ্য পোতগুলি জলমগ্ন করিলেন। এক একটি করিয়৷ টাদের ছন্টি পুত্রকে বমসদনে পাঠাইলেন। চাদ তথাপি অটল! টাদ জানেন, তাহার ইষ্টদ্বেবও যেরূপ শোক-মোহ, সুখ হঃখ, কামক্রোধাদির অতীত, তাহার তক্তগণ সেইরূপ হইতে চেষ্টা ন। 'করিলে, তাহাকে পাইতে পারেন না, _কাজেই পুভ্রনাশ, অর্থনাশ, অনস্তাপ পরিজনের গভীর শোকে চাদ চিত্ত-দৌর্ধল্য দেখাইলেন না-__তীহার প্রতিজ্ঞ! টলিল ন|। পরিশেষে ভগবান দেবাদিদেব যখন তাহার প্রতিজ্ঞা, তাহার বিশ্বাস তক্তিতে পরিতুষ্ট হইলেন, তখন ভক্তের তগবান ভক্তের প্রতি দয়া করিয়। তাহার জ্ঞান-চক্ষু উম্মীলিত করিয়। দেখাইক্ঝ দিলেন যে, পৃথিবীতে তিনি ভিন্ন অন্ত কিছু নাই--যত্র জীব তত্র শিব। বৃক্ষলতা গুল্স হইতে সামান্ত কীট পতঙ্গ সমস্তই তিনি (1) - সুতরাং খ্ননসা তাহাতে ভেদ নাই। নাম ভেদ 'মাত্র। ভগবৎ কৃপায় চাদের জান-চক্ষু খুলিয়। গেল। চাদ শিবময়জগৎ দেখিলেন, তখন আর মনসাতে তাহার অশ্রদ্ধ। রহিল না, নিজ ইষ্টদেবের নাম রূপান্তর মনে করিয়৷ তিনি তাহার পুজ। করিলেন তগবানুও সদয় হইয়া তাহার যাহ। কিছু নষ্ট হইয়াছিল সমস্তই প্রত্যর্পণ করিলেন। কবিকষ্কন চণ্ভীতে ধনপতি সদ্দাগরকেও এইরূপ শিবোপাসক দেখিতে পাওয়া যায়। তিনি প্রিরতমা! পত্রী খুল্লনার অনুরোধে চণ্ডী *মানিতে অসম্মত- পুজা করা দুরে থাকুক, চণ্ডীর ঘট দূরে ফেলির! দিয়! ধনপতি বাণিজ্যার্থ সিংহলে যাত্র। করিলেন। এই অপৰাধে তাহাকে কত নিগ্রহ তোগ করিতে হইয়াছিল তাহ! চণ্ীকাবোর পাঠক মাত্রেই অবগত আছেন। (ক্রমশঃ ) শ্রাচারুচন্ত্র মুখোপাধ্যায় (ব্ি-এ)

কে বড়! আত্মার শক্তি না দেহের শক্তি অধ্যাপক মরে হিবার্ট "জর্ণাল” নামক প্রসিদ্ধ পত্রে আত্মার শক্তি কেমন

তাহা! বুঝাইবার জন্য যোহনটাদ করমটাদ গাছির শক্তি উল্লেখ করিয়াছেন। তিনি লিখিয়াছেন £-_

*.. +১৮৮৯ ্রীষ্টান্দে মোহনচাদ করমটাদ গান্ধি নায়ক এক যুবক

১*ম বর্ষ, ১ম সংখ্যা] রড: ২১

সি বা বা উস ৩২৬০ সি ২৬৮৯৮০২৬১০০ ৭৬০৯ ৯৯ অপ সত _ ৭৯১ জি আছ ০২৬০ ০৯৯১০ আস ২০৯ ৯০৯ -7০-০৯ স৬ ি্ি ্ছি নর হ. এপি লি, চস ছি তাজ পট

আইন পাঠের জন্য ইংলগ্ডে আসিয়াছিলেন | নি: ধনী কার্ধ্যকুশল জ্ঞানোজ্জল পরিবারসত্ভৃত, ভদ্র বিনয়ী। সাধারণে যেমন পোষাক পরিয়। চলা-ফির1 করে, তিনিও তেমনই করিতেন বিষয়ে তাহার কোন বিশেষত্ব ছিল না। মদ্যস্পর্শ করিব না ইন্দ্রিয়াসক্ত 'হুইব ন', তখনই তিনি এই প্রতিজ্ঞায় আবদ্ধ হইয়াছিলেন, কিন্তু তাহার প্রাণের সক্কল্প কেহ জানিত না।. তিনি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হইয়! বোম্বাই নগরে ব্যারিষ্টারী করিতে আরম্ভ করিয়াছিলেন। সে ব্যবসায়ে. তিনি কৃতকাধ্য হইয়াছিলেন। কিন্তু অর্থ অপেক্ষা ধর্মই তাহার আছ্ুরাগের বিষয় ছিল। ক্রমে তাহার বাসনাশৃঙ্খল ছিন্ন হইল; সামান্ত অর্থ কেবল গ্রাসাচ্ছাদনের জন্য রাখিয়া! আর সমস্ত বিতৃ-সম্পত্তি. সৎকার্ষ্যে দান করিলেন। জোর জুলুমের সাহায্যেও লোকে হ্বত্বাধিকার সাব্যস্ত করে, স্থতরাং আদ্রালতে করব করিলে ধর্শহানি হইবে বলিয়া তিনি শেষে ব্যারিষ্টার পরিত্যাগ করিলেন | বছুদ্দিন পরে ১৯১৪ সালে পুনরায় ইংলগ্ডে তাহার সহিত আমার সাক্ষাৎ হয়। তিনি কেবল ভাত জল থাইতেন ভূমিতলে শয়ন করিতেন। তাহার স্ত্রী যথার্থই তাহার সহধর্ষিনী__তিনি সর্ববিষয়ে শ্বামীর অনুসরণ করিতেন। মিঃ গাদ্ধির কথাবার্ায় শিষ্টত1 বহুশ্রুতের পরিচয় পাওয়া যাইত। সাধুর লক্ষণ তাহাতে পরিস্ফুট হইয়া উঠিয়াছিল। তিনি তীহার জশ্মভূমিকে ভালবাসেন সুতরাং ভারতীর়্ ভাবে তাঁরতের নবজীধন পর্ধার করাই তাহার আকাঙ্ষা 1, কিন্ত তিনি মানুষে মানুষে পার্থক্য রাখিতে চান না, জগতের ধনীর নিকর্ট শ্রমজীবীর দাসত্ব, ধনৈশ্ব্ধযমূলক - সত্যতা, অর্থের পুজা জাতিতে জাতিতে সংগ্রামের তিনি বিরোধী প্রাচ্যদেশের অধিবাসীগণ সাধুদ্িগকে বড ভক্ভি করেন। কেহ সাধু কি অসীধু$ জনসাধারণ স্বার্থত্যাগের দারাই তাহার পরীক্ষা! করিয়] থাকে দরিদ্র ব্রত অবলম্বন কর, অল্প জল..খাঠয়! সহজ ভাবে প্রাণ ধারণ কর, জনসাধারণ তোমার উপদেশ ভক্তির সহিত . শ্রবণ করিবে ভাল থাও, ভাল পর, তোমার কথায় কেহই কর্ণপাত করিবে না। জনসাধারণের মনের উপর গান্ধির অসাধারণ প্রভাব বিস্তৃত দক্ষিণ আফ্রিকায় যে তিনি জু হইয়াছিলেন তাহার কারণ এই,

২২ | . কুপ্দছু | | বৈশাখ,.১৩২৫

সি, লিউ টি এস আস... ৯৬, জি 2 ০৭৯ পপির স্পা ১৯০৫ সপসসসিিসসিপ সি

তিনি প্রতিজ। করিয়াছিলেন,কাঁহারও' কোন অনিষ্ট করিবেন না; কাহারও উপর অত্যাচার করিবেন ন!» কিন্তু হার বিপক্ষগণ তাহাকে যে দণ্ড দিবেন তাহ! সহা করিবেন দণ্ডদ্ধান করিতে করিতে এমন দিন আসিবে যখন বিপক্ষের! শ্রাস্ত এবং আপমাদের কৃতকার্ধ্ের জগ্ত লজ্জিত হইবে তিনি যে সংগ্রামে প্রবৃত্ত হই্জাছিঙ্গেন, তাহার মুগ মানবাত্মার সহিত দৈহিক আর্থিকশক্কির বিবাদ তাছার ফল চিরদিন যাহ1 হইয়া থাকে, তাছাই হইয়াছে দৈহিক আর্থিক শক্তি আপনার পতাকা ফ্কেলিয়া'দিয়। অবশেষে আত্মার চরণে অবনত হইয়াছে।

, * যাহার! ইন্জ্রিয়ের আনন্দকে